পাঠকের চিঠি, হুবুহু তুলে ধরা হলো।

 

এর নাম সেলিম সিকদার সাবেক তহসিলদার টেকনাফ কর্মরত ছিলেন।
অবৈধ ভাবে টাকার পাহাড় করেছে।
বড় ইমারত করেন।
জাহান্নামের ঘরে ঘুমান।
এই অবৈধ টাকা দিয়ে তার সন্তানদের শিক্ষা প্রদান করেন।
তার সন্তানরা পিতার অবৈধ আচরণ যাতে শিক্ষা না পায় দোয়া কামনা করি।
সোনার বাংলা দূর্নীতি থেকে মুক্তি পাক।

 

টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং এর লম্বা বিল গ্রামের সহজসরল লোকদের ফাঁদে ফেলেন।
প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
১/ নুরুল ইসলাম হতে ৪,৫০,০০০/
২/হাজী মো: হোছন থেকে ৪,৫০,০০০/
৩/উসমান থেকে ৪,০০,০০০/
৪/আবদুল হাকিম থেকে ১০০,০০০/
৫/নুর আহমদ থেকে ৪০০০০/
৬/জাফর আলম হতে ৪০০০০/
৭/খলিল আহমদ থেকে ৪০০০০/
৮/অলি আহমদ থেকে ৪০০০০/
৯/ইসহাক থেকে ২০,০০০/
১০/ হাজী মোজাহের থেকে ৪,০০,০০০/
১১/ আলী হায়দার থেকে ১,০০,০০০/
আরও অনেকে আছে।
তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে এড়িয়ে চলে।
মোবাইলে কল করলে কেটে দেয়।
আমরা টাকা ফেরত চাই।
আপনাদের ও প্রশাসন এবং সাংবাদিক ভাইদের সহযোগিতা কামনা করি।

 

চিঠির দ্বিতীয় অংশ: সে ২০১৫ হতে ২০১৬ হ্নীলা ভূমি অফিসে তহসিলদার হিসাবে দায়িত্বে ছিলেন।
আমাদের এলাকায় কিছু জমি নামজারি করে দিবে বলে সহজসরল মানুষদের টকিয়ে টাকা নিয়ে বদলী হয়ে নাইকংছড়ি চলে যায়।
এরপর দূরত্ব হয়ে যায়।
তার সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে এড়িয়ে চলতে শুরু করে।

By Editor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *