আজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। এক অবিস্মরণীয় বীরত্বগাথা গৌরবময় দিন। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করার দিন আজ। আজ ১৬ ডিসেম্বর’২০২৩ইং সকাল সাড়ে ১০টায় মহান স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গ্রীণ বাংলা গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন ও ন্যাশনাল ওয়ার্কার্স ইউনিটি সেন্টারের যৌথ উদ্যোগে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

গ্রীণ বাংলা গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন ও ন্যাশনাল ওয়ার্কার্স ইউনিটি সেন্টারের সভাপতি সুলতানা বেগম এর নেতৃত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি সেলিনা হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ফরিদ উদ্দীন, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক রোজিনা আক্তার সুমি, দপ্তর সম্পাদক রাবেয়া ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মোঃ তাহেরুল ইসলাম,আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি ইউসুফ শেখ, মিরপুর আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফারুক প্রমুখ।
নেতৃবৃন্দ বলেন স্বাধীন বাংলাদেশের ৫২ বছর পেরিয়ে ৫৩তে পদার্পণের দিন আজ। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন ভূখন্ডের দেশ হিসেবে জানান দেয়ার দিন আজ। দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তি সংগ্রামের মাধ্যমে পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর শোষণ বঞ্চনার অবসান ঘটিয়ে মুক্তিকামী মানুষ ১৯৭১ সালের এই দিনে অর্জন করেছিল বিজয়। গণতন্ত্রের চেতনা স্বাধীনতা অর্জনের মাধ্যমে পূর্ণতা পেয়েছিল আজকের এই দিনে। অগণিত মানুষের আত্মত্যাগ আর সীমাহীন কষ্টের প্রহর কেটে নতুন সূর্যোদয় ঘটেছিল ১৯৭১ সালের এই দিনে।
নেতৃবৃন্দ আরও বলেন মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে দেশের শ্রমজীবী মানুষের অবদান অবিস্মরণীয়। ৫৬ হাজার বর্গমাইলের জনপদে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা মুক্তিযুদ্ধ এগিয়ে নেয়ার জন্য সর্বোচ্চ লড়াই করেছে। দেশের কুলি-মজুর, কৃষক-শ্রমিকদের অবদান কোনোভাবেই ছোট করে দেখার অবকাশ নেই। তারা স্বাধীনতা সংগ্রামের সূর্য ছিনিয়ে আনার জন্য দুঃশাসনের শৃঙ্খল ভেঙেছে। স্বাধীনতা ত্বরান্বিত করার জন্য অস্ত্র হাতে যুদ্ধের ময়দানে সম্মুখযুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল। সম্মুখযুদ্ধে অসংখ্য শ্রমিক জীবন দিয়ে বিজয়ের লাল সূর্য অঙ্কিত করেছে। আমরা তাদের অবদানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। অদ্যবধি শ্রমজীবি মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি মেলেনি। যা একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বাধীনতাকামী মানুষের কষ্টকর।

By Editor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *